Sun, July 21, 2024

ই-পেপার দেখুন

চোর সন্দেহে থানায় বেধড়ক মারধরের অভিযোগ, যুবকের মৃত্যু ঘিরে উত্তপ্ত ঢোলাহাট

আবুল খায়ের

Published: 09 July, 2024, 02:55 PM
চোর সন্দেহে থানায় বেধড়ক মারধরের অভিযোগ, যুবকের মৃত্যু ঘিরে উত্তপ্ত ঢোলাহাট

 

 

পুবের কলম, ওয়েব ডেস্কঃ চোর সন্দেহে থানায় তুলে এনে এক যুবককে মারধোরের ফলে মৃত্যুর অভিযোগ পরিবারের। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য দক্ষিণ ২৪ পরগণা ঢোলাহাটে। পুলিশের বিরুদ্ধে ঝাঁটা চটি হাতে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ মহিলাদের। ব্যারিকেড করে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা পুলিশের। নামানো হয়েছে ব়্যাফ। মৃত যুবকের নাম আবু সিদ্দিক হালদার (২২)। মৃত যুবক ঢোলাহাটের ঘাটবকুলতলা গ্রামের বাসিন্দা।

 

ঘটনার সূত্রপাত গত ৩০ জুন। ওইদিন মৃত যুবকের কাকা মহসিন হালদারের বাড়ি থেকে সোনার গয়না চুরি হয়৷ এরপর ১ জুলাই ঢোলাহাট থানার পুলিশ মহসিন হালদার ও তাঁর ভাইপো আবু সিদ্দিককে থানায় তুলে আনে বলে অভিযোগ। মহসিনকে দিয়ে ভাইপোর নামে জোর করে চুরির অভিযোগ লিখিয়ে নেওয়া হয়। অভিযোগ, এরপর সিদ্দিককে থানার মধ্যে দফায় দফায় মারধর করা হয়। ৪ জুলাই কাকদ্বীপ মহকুমা আদালতে পেশ করা হয় আবু সিদ্দিককে। ওইদিন জামিন দেয় আদালত। গুরুতর অসুস্থ আবু সিদ্দিককে মথুরাপুর, ডায়মন্ড হারবার ও চিত্তরঞ্জন হাসপাতলে ভর্তির চেষ্টা হয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় সোমবার পার্ক সার্কাসের একটি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়। গতকাল রাত দশটা নাগাদ যুবকের মৃত্যু হয়।

 

পরিবারের অভিযোগ, ওই যুবকের শরীরের একাধিক জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে চিকিৎসকরা তাদের জানিয়েছে। এরপরেই লকআপে পুলিশের বিরুদ্ধে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ তুলছে পরিবার। পরিবারের দাবি, অভিযুক্ত এই পুলিশকর্মীদের বিরুদ্ধে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে। এই ঘটনার প্রতিবাদে ঢোলাহাট থানার সামনে ক্ষোভে ফেটে পড়েন এলাকাবাসী। চটি হাতে পুলিশ কর্মীদের শাসাতে দেখা যায় তাঁদের। সুন্দরবনের পুলিশ সুপার কোটেশ্বর রাও জানিয়েছেন, আদালতে পেশ করার সময় মেডিক্যালে কোনও সমস্যা ছিল না। পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে বিভাগীয় তদন্ত শুরু করেছে জেলা পুলিশ।

Leave a comment