জেলা

স্পেশাল ব্রিগেড ট্রেনের ফাঁকা কামরায় নিত্যযাত্রীদের আবেদন করে তুললেন হতাশ বিজেপি নেতারা

নিজস্ব প্রতিনিধি ,ঝাড়গ্রাম:- বিজেপির পক্ষ থেকে ব্রিগেড সমাবেশে লোক ভরাতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল। সড়ক পথে বাস ও অন্যান্য যানবাহন ভাড়া করা ছাড়াও রাজ্যের চারটি স্থান থেকে ব্রিগেডমুখী স্পেশাল ট্রেন বুক করেছিল বিজেপি। বহু লক্ষ টাকা খরচ করে স্পেশাল ব্রিগেড ট্রেন করলেও জঙ্গলমহল হতাশ করল বিজেপি নেতাদের। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর জঙ্গলমহলে বিজেপি জেগে উঠেছে বললেও ব্রিগেডমুখী ফাঁকা ট্রেন বার্তা দিল অন্য কিছু। জঙ্গলমহলের বিজেপি কর্মী সমর্থকদের অপেক্ষায় ব্রিগেড ট্রেন নির্ধারিত সময়ের থেকেও তিন ঘণ্টা অপেক্ষায় রইল ঝাড়গ্রাম স্টেশনে। তারপরও কামরা ভরাতে না পেরে দায়িত্বে থাকা বিজেপি নেতারা মুখ রক্ষায় স্টেশনে অপেক্ষারত নিত্যযাত্রীদের আবেদন করে তুললেন কামরাতে। তারপরও ভর্তি হয়নি ট্রেন। কোন সমীকরণে এই ঘটনা খুঁজছে দলের নেতারা।

ব্রিগেড এর একটা বড় অংশ জঙ্গলমহল থেকে নিয়ে হাজির করবে বলে জঙ্গলমহলের বিজেপি নেতারা দাবি করেছিলেন। তারা গত কয়েকদিন ধরে জঙ্গলমহলে প্রচারে বেরিয়ে দাবি করছিলেন পঞ্চায়েত নির্বাচনের থেকেও লোকসভা নির্বাচনে নাকি ভালো সাড়া পাচ্ছেন জঙ্গলমহলে। তাই প্রধানমন্ত্রীর ব্রিগেড সমাবেশে জঙ্গলমহলকে সামনে রাখার তোড়জোড়ও করেছিলেন। ঝাড়গ্রাম, লালগোলা, পুরুলিয়া, রামপুরহাট এই চার জায়গা থেকে বিশেষ ব্রিগেড গামী ট্রেন ভাড়া করেছিল বিজেপি। বহু লক্ষ টাকা খরচ করে কর্মী সমর্থকদের ভিড় বাড়ানোর প্রচেষ্টা ছিল। কিন্তু সেই প্রচেষ্টা তে জল ঢেলে দিল জঙ্গলমহলের মানুষ। সেই ট্রেনগুলি পুরো ভর্তি হওয়া তো দূর, ভরল না কোন কামরাই। ঝাড়গ্রাম স্টেশনে গভীর রাতেই এসে পৌঁছে গিয়েছিল ব্রিগেড স্পেশাল ট্রেনটি। নির্ধারিত সময় অনুসারে ভোর চারটের সময় বিজেপি কর্মী সমর্থকদের নিয়ে হাওড়ার দিকে রওনা হওয়ার কথা। কিন্তু দেখা গেল ট্রেন দাঁড়িয়ে থাকলেও বিজেপি কর্মী সমর্থকরা কেউই উপস্থিত হননি ওই সময়ের মধ্যে। তাই বিজেপি নেতাদের অনুরোধ এই সময় সূচি পুনরায় পরিবর্তন করে করা হয় সকাল ৬ টা ৪৫। এর মাঝে নেতাদের ইতিউতি ফোন করা শুরু হয়। দুজন -দশজন করে কয়েকবার লোক ট্রেনে এসে উঠতে শুরু করে। অনেক চেষ্টা করে সাড়ে ছটা নাগাদ ৭০ থেকে ৮০ জন কর্মীকে নিয়ে একটি মিছিল হাজির হয় স্টেশনে। এরপরও গুটিকয়েক’ লোক এখান ওখান থেকে ট্রেনে ওঠেন। চালক জানিয়ে দেন এবার রওয়ানা দিতে হবে। পরিস্থিতি লজ্জাজনক হবে মনে করে স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা হাওড়া গামী নিত্যযাত্রীদের ওই ট্রেনে উঠতে অনুরোধ করেন বিজেপি নেতা কর্মীরা। তারপরেও ভরেনি ট্রেন। পরিস্থিতি দেখে নেতারা চালককে ট্রেনটি খড়গপুর ও মেচেদাতে স্টপেজ দিতেও বলে। শেষমেষ শ-দুয়েক লোকজনকে নিয়ে বিশাল ট্রেনটি হাওড়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয় ৭ টার সময়। এবিষয়ে ঝাড়গ্রাম জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক অবনী কুমার ঘোষ বলেন ‘আসলে ব্রিগেড সমাবেশে যাওয়ার জন্য কয়েকশো বাস ও অন্যান্য যানবাহন ভাড়া করা হয়েছে। তাই এই ট্রেনে ভিড়টা কম।’ ট্রেনে উপস্থিত বিজেপি কর্মীরা অবশ্য মনে করছেন নেতাদের সঙ্গে কর্মী ও সমর্থকদের সমন্বয়ের অভাব। ঝাড়গ্রামের তৃণমূল নেতা সুকুমার হাঁসদা বলেন- ‘মুখে বিশাল ভোট পেয়েছি, বিশাল সাড়া পাচ্ছি বললে তো হয় না। আমরা জানি জঙ্গলমহলে মানুষ নেত্রীর উপর ভরসা রেখেছেন। যার উৎকৃষ্ট প্রমাণ বিজেপির ফাঁকা ট্রেনের ব্রিগেড যাত্রা।’

Show More

Related Articles

মন্তব্য করুন

error: Content is protected !!
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker
WhatsApp us