প্রথম পাতাব্রেকিং নিউসমহানগর

১৮০ ঘর চিনা পরিবারের জন্য মান্দারিন ভাষায় দেওয়াল লিখন কলকাতায়

বিশেষ প্রতিবেদকঃ নির্বাচনী প্রচার এখন অভিনব উপায়ে চালাতে তৎপর বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। কিন্তু সবাইকে টেক্কা দিয়ে এক অভূতপূর্ব দলীয় প্রার্থীদের সমর্থনে প্রচারপর্ব সারলেন কলকাতা পুরসভার ৬৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফৈয়াজ আহমেদ খান। এই প্রথম চিনের মান্দারিন ভাষায় প্রার্থীর পক্ষে দেওয়াল লিখন হল। কেবল কলকাতা শহরে নয়, ভূ-ভারতের কোথাও আগে চিনা ভাষায় দেওয়াল লিখন হয়েছে বলে শোনা যায়নি– দাবি কাউন্সিলর ফৈয়াজের।
চিনা ভাষায় দেওয়াল লিখন, কেবল যে চমক তা অবশ্য নয়। এর কার্যকারিতা রয়েছে। কারণ কলকাতা শহরেই রয়েছে এক টুকরো চিনাপাড়া। চায়না টাউন বলে যার খ্যাতি রয়েছে। তপসিয়া-ট্যাংরার মধ্যবর্তী এই অঞ্চলে বর্তমানে ১৮০টি চিনা পরিবারের বাস। আগে যখন তিলজলা এলাকায় ট্যানারিগুলো চালু ছিল– তখন অন্তত ৫০০ চিনা পরিবার এখানে বসবাস করতো। এখন সেই ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেক পরিবারই ভিন দেশে পাড়ি দিয়েছেন। কেউ আবার স্বভূমিতে ফিরে গিয়েছেন। চিনা পাড়ার দুই দিকে তৃণমূল কংগ্রেসের দুই প্রার্থীর প্রচারে বড় বড় দেওয়াল জুড়ে চাইনিজ ভাষার বড় বড় হরফ দেখা যাচ্ছে। সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের ঘাসফুল চিহ্ন দেখে সকলেই ধরে নেবেন– এটা কাদের দেওয়াল লিখন। কিন্তু হরফগুলো রয়ে যায় সম্পূর্ণ অজানা। কোনও কোনও দেওয়ালে আবার দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি।
কলকাতা উত্তর কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং দক্ষিণ কলকাতার প্রার্থী মালা রায়ের সমর্থনে ফৈযাজের উদ্যোগে বেশ কয়েকটি দেওয়াল লিখন হয়েছে চাইনিজ ভাষায়। সবগুলিই চায়না টাউনের আশেপাশে। কোনওটায় লেখা ‘ম আই লি’ যার বাংলা অর্থ ‘আমরা তোমাকে ভালোবাসি’। সেই সঙ্গে চিনা হরফে লেখা ‘মুখ্যমন্ত্রী জিন্দাবাদ’। সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মালা রায়কে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার আহ্বানও রয়েছে দেওয়াল লিখনে। ফৈয়াজ আহমেদ খান জানান– চিনা বাসিন্দাদের মধ্যে দলের প্রার্থীর প্রচারের জন্যই এমন চিনা ভাষায় প্রচারের উদ্যোগ। আর এই দেওয়াল লিখনে সম্পূর্ণ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন ওই পাড়ারই বাসিন্দা চিনা যুবক পিটার চোং– কাকিন লিউ– পুই শিনচুঙরা তাঁদের হাতে নিখুঁত হয়েছে দেওয়াল লিখন।
জানা গিয়েছে, কয়েক দশক আগে চিনা পাড়ায় চাইনিজ মান্দারিন ভাষায় দেওয়াল লিখন ও নানা ধরনের কার্টুন এঁকে সাজানো হতো চাইনিজ রেস্টুরেন্টগুলির আশপাশের এলাকা। এখন আর সেই রেওয়াজ নেই। এবার নির্বাচনের হাত ধরে চিনা পাড়ার দেওয়ালে পুনরায় ফিরে এল মান্দারিন হরফ।

Show More

Related Articles

error: Content is protected !!
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker
WhatsApp us