জেলা

কর্মী নেই, লোকসভা নির্বাচনের মুহূর্তেও কেশপুরে জামশেদ ভবনের ঝুলছে তালা

নিজস্ব প্রতিনিধি ,কেশপুর:- লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে প্রতিটি প্রার্থীই এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত দৌড়ে বেড়াচ্ছেন। প্রতিটি দলের কর্মীরাই নেয়ে ঘেমে একাকার হয়ে যাচ্ছেন প্রচারে। সে জায়গায় একেবারে উল্টো চিত্র পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুর এর। লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে কেশপুরে বাম কর্মীরা তো নেই, দলীয় কার্যালয়টাও খুলে রাখার লোকের অভাব। আর তো আর, এক সময়ের কেশপুরের বাম দুর্গ জামশেদ ভবনই তালা ঝুলানো অবস্থায়।

রবিবার বেলা ১১ টা নাগাদ সেখানে গেলে দেখা যায় গুটি কয়েক কর্মী ইতিউতি ঘুরে বেড়াচ্ছেন বাইরে। বিশাল জামশেদ ভবনে নতুন কয়েকটি লাল পতাকা টাংগানো হলেও প্রধান দরজাতেই তালা ঝুলানো। বাইরে থাকা এক কর্মী দেবাশীষ ঘোষকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন- ‘কর্মীদের ডাকা হয়েছিল বৈঠক হবে বলে। এখানে এসে দেখলাম কেউই নেই। তালা মারা। মেদিনীপুর থেকে নেতারা দল চালালে কি আর করা যাবে। তাই প্রচারে কেউ নেই।’ শনিবারই প্রথম ঘাটাল লোকসভার সিপিআই প্রার্থী তপন গাঙ্গুলী কেশপুরে প্রচারে এসেছিলেন। শ-খানেক পুরনো কর্মীদের নিয়ে  সিপিআইএমের জোনাল কার্যালয় জামশেদ ভবন খুলে ঘন্টাখানেক মিটিং করেছিলেন। এরপর জামশেদ ভবনসংলগ্ন কেশপুর বাজারে একটা চক্কর প্রচারও করেছিলেন। কিন্তু তিনি ফিরে যেতেই আর প্রচার তো দূর, জামশেদ ভবনে তালা ঝোলানো তারপর থেকেই। কর্মীরা জানালেন -নিরাপত্তা অভাবে সকলেই দলের কাছ থেকে দূরে সরে রয়েছেন। তাই দলীয় কার্যালয় খুলে বসার লোকটাও নেই। দলের জেলা নেতারা সকলেই কেশপুর ছেড়ে মেদিনীপুরে থাকেন।

তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন ‘বামেরা এক সময় যে পরিস্থিতি তৈরি করেছিল আজ তার শিকার নিজেরাই। কেউ কিছু না  করলেও নিজেরা নিজেরা ভয় পাচ্ছে৷ যে কারণে এলাকাছাড়া হয়ে রয়েছে।অনেকেই আবার নিজেদের বিজেপির হাতে সঁপে দিয়েছেন, তাই দলীয় কার্যালয়ে বসতেও লজ্জা পাচ্ছেন হয়তো।’

Show More

Related Articles

error: Content is protected !!
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker
WhatsApp us