জেলা

‘যেমন খুশি, তেমন সাজো’তে টিভি রিপোর্টার ও ক্যামেরাম্যানের ভূমিকায় দুই ক্ষুদে পড়ুয়া


দেবশ্রী মজুমদার, নলহাটি, ২২ ফেব্রুয়ারি– “আপনারা দেখলেন, এই মূহুর্তে আমরা কথা বললাম বেশ কয়েকজন পথ চলতি মানুষের সাথে। তাঁদের প্রত্যেকের একটাই বক্তব্য, সচেতন দেশবাসী হিসেবে কোনো গুজব ছড়ানো উচিৎ নয়। বাংলার সম্মান অটুট রাখতে কারো কোনো প্ররোচনায় পা দেওয়া উচিৎ নয়। ‘এ ট্যু জেড’ টিভির পক্ষে আমি রিপোর্টার অর্যমা ভট্টাচার্য্য ও সঙ্গে ক্যামেরায় পৌষালী চক্রবর্তী।”

এটা কোনো লাইভ শো নয়। একটি স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় ‘যেমন খুশি, তেমন সাজো’ প্রতিযোগিতায় দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় মিডিয়ার কি করা উচিত তা দেখাতেই নেমে পড়েছে দুই স্কুল পড়ুয়া। স্বভাবতই এই জুটি নজর কেড়েছে জুরিদের। তারাই প্রথম হয়। মা বিন্ধ্যবাসিনী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুব্রত মুখোপাধ্যায় জানান, শুক্রবার আমাদের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠান ছিল। এছাড়াও এলাকার তিনটি অবৈতনিক নৈশ বিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা অংশ গ্রহণ করে এদিন। প্রত্যেকেই নিজ নিজ প্রতিভা ফুটিয়ে তুলেছে। সাম্প্রতিক ঘটনাবলীর উপর আলোকপাত করে আমাদের বড়দের চোখ খুলে দিয়েছে এরা।

জানা গেছে, পৌষালী চক্রবর্তী প্রিনার্সারিতে পড়ে, অর্যমা ভট্টাচার্য্য প্রথম শ্রেণীতে। যেমন খুশি তেমন সাজো প্রতিযোগিতায় প্রথম হয় পৌষালী চক্রবর্তী ও অর্যমা ভট্টাচার্য্য। দ্বিতীয় হয় প্রতীক্ষা আলিপাত্র। তৃতীয় অঙ্কন সাহা। অদৃতা দত্ত নার্সারিতে পড়ে। মায়ের সহযোগিতায় নবম শ্রেণীর ছাত্রীর ভূমিকায় ‘সবুজ সাথী’ প্রকল্পের ভালো দিকগুলো সুন্দর বাচন ভঙ্গিমায় ফুটিয়ে তোলে সে।

Show More

Related Articles

মন্তব্য করুন

error: Content is protected !!
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker
WhatsApp us