মহানগর

আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে চারুকলা ও হস্তশিল্পের প্রদর্শনী

পুবের কলম প্রতিবেদকঃ সোমবার আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্ক সার্কাস ক্যাম্পাসে উদ্বোধন হল দুদিনব্যাপি চারুকলা ও হস্তশিল্প প্রদর্শনী। এদিনের প্রদর্শনীতে উপস্থিত বিশিষ্টরা এই প্রদর্শনীর উচ্ছসিত প্রশংসা করেন। এই প্রদর্শনীতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ ও পুবের কলম পত্রিকার সম্পাদক আহমদ হাসান ইমরান। আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএড-এর ছাত্রছাত্রীদের ‘চারুকলা ও হস্তশিল্পের এটাই ছিল প্রথম প্রদর্শনী। আহমদ হাসান ইমরান বলেন, অধ্যাপকদের তত্বাবধানে আলিয়ার ছাত্রছাত্রীদের এই ধরণের চমৎকার প্রদর্শনী বিশ্ববিদ্যালয়কে অবশ্যই গর্বিত করবে। ছাত্রছাত্রীদের উজ্জ্বল মুখই সাক্ষ্য  দিচ্ছে সুযোগ পেলে তারা এই ধরণের শৈল্পিক কাজেও নিজেদের প্রমাণ করতে পারবে। বাংলা একদিন চারুকলা ও হস্তশিল্পে জগৎবিখ্যাত ছিল। কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত যথার্থই বলেছিলেন– ‘বাংলার মসলিন/ বোগদাদ- রোম-চীন/ কিনতেন একদিন/ কাঞ্চন মূল্যে।’ কিন্তু ব্রিটিশরা এই শিল্পকে পরে ধ্বংস করে দেয়। আমাদের সেই পূর্ব গৌরবকে ফিরিয়ে আনতে হবে। আর ‘একটিভিটি বেসড লার্নিং’ অর্থাৎ কর্মের মাধ্যমে শিক্ষাকে আমাদের আপন করে নিতে হবে। স্কীল ডেভেলপমেন্টের জন্য সরকার থেকে নানা ধরণের সহায়তা করা হয়। আহমদ হাসান ইমরান বলেন, মু্খ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চেয়েছেন ঐতিহ্যবাহী আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় যেন শিক্ষার বিশ্ব মানচিত্রে জায়গা করে নেয়। আলিয়ার অধ্যাপক ও ছাত্রছাত্রীদের এই প্রত্যাশাকে পূরণ করতে হবে।

আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা বিভাগের ডিন মীর রেজাউল করিমের বক্তব্য ছিল– এই বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে সুপ্রাচীন ঐতিহ্য। ১৭৮০ সালে এই ভারতবর্ষের প্রথম আধুনিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে এর যাত্রা শুরু। তিনি ছাত্রছাত্রীদের সেই ঐতিহ্য বজায় রেূে এগিয়ে চলার আহ্বান জানান।
বিএড বিভাগের পড়ুয়াদের উদ্দেশ্যে স্কুল সিলেবাস কমিটির চেয়ারম্যান অভীক মজুমদার বলেন– এডুকেশন বিভাগও একটি বিজ্ঞান। শিক্ষার একটা বড় অঙ্গ ‘আর্ট অ্যান্ড ক্র্যাফট’। হাতে-কলমে শেূা এই শিক্ষার গুরুত্ব অনেক বেশি। আলিয়ার অধ্যাপক মীর রেজাউল করিমের কথায় একমত হয়ে তিনি বলেন রবীন্দ্রনাথ শ্রীনিকেতনে হাতে কলমে চারুকলা ও হস্তশিল্প শিক্ষার ব্যবস্থা করেছিলেন। গান্ধীজীও এ বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন।
বিএড বিভাগের প্রধান ড. জাকির হোসেন বলেন, আমাদের এই ছাত্রছাত্রীরাই আগামী দিনের শিক্ষক। তাই এদেরকে সব দিক থেকে দক্ষ করে তোলাই আমাদের লক্ষ্য। এই প্রদর্শনীকে সফল করার জন্য ছাত্রছাত্রী ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা যে পরিশ্রম ও কল্পনা শক্তির পরিচয় দিয়েছে, তার তিনি প্রশংসা করেন। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান ও প্রবাদপ্রতীম শিক্ষক পার্থপ্রতিম দেব ছাত্রছাত্রীদের চারুকলা ও হস্তশিল্পের শিক্ষায় দক্ষতা নিয়ে মনোনিবেশ করার বার্তা দেন।

প্রদর্শনীতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার আসফাক আলি, বিএড বিভাগের অধ্যাপক জামালউদ্দিন, অধ্যাপিকা রেশমা খাতুন, বাংলাদেশের খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তরিকুল ইসলাম প্রমুখ। এই প্রদর্শনীর পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে অগ্রণী ভূমিকা নেন অধ্যাপক তোহিদউল ইসলাম। ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সহযোগিতায় ছিলেন রোকাইয়া রহমান, মমতাজ খাতুন, মোজাক্কার আলি, খাইরুল চৌধুরি সহ বিএড বিভাগের ছাত্রছাত্রীরা।
এই প্রদর্শনীকে ঘিরে আলিয়ার সংশ্লিষ্ট বিভাগের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে প্রবল উৎসাহ ও উদ্দীপনা দেখা যায়। তাদের নিজের তৈরি হস্তশিল্পের সামগ্রী দর্শকদের মধ্যে প্রদর্শন করতে পড়ুয়ারা ছিলেন সব সময় সক্রিয়। প্রধান সামগ্রীর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল জুট ও কাপড়ের দৃষ্টিনন্দন ব্যাগ, বিছানার চাদর, টেবিল ক্লথ, পুতুল, অ্যালবাম, ডায়েরি, ফ্রেম। প্রদর্শনী-সামগ্রীগুলি দর্শকদের এতটাই মন জয় করে নেয় যে, দুদিনের প্রদর্শনীর প্রথম দিনেই ৯৫ শতাংশ প্রদর্শিত বস্তু বিক্রয় হয়ে গিয়েছে।

Show More

Related Articles

মন্তব্য করুন

error: Content is protected !!
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker
WhatsApp us