জেলা

রামপুরহাটে চিকিৎসকের মৃত্যু

দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট, ১৪ ফেব্রুয়ারি ঃ পথদুর্ঘটনায় এক চিকিৎসকের মৃত্যুর পর রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজ থেকে জাতীয় সড়কের একশ মিটার পর্যন্ত নো পার্কিং জোন ঘোষণা করল প্রশাসন। যদিও, মোটরবাইকের ধাক্কায় চিকিৎসকের মৃত্যু, তবুও মৃত্যুর তদন্তের দাবি করেছে পরিবার। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের রামপুরহাটে ৬০ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর হাসপাতালের সামনে। চিকিৎসকের মৃত্যুর পর হুঁশ ফিরেছে প্রশাসনের। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে যান নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা খতিয়ে দেখতে ঘটনাস্থলে যান মহকুমা পুলিশ আধিকারিক ও প্রশাসনিক কর্তারা।

মৃত চিকিৎসকের নাম ধীরেন্দ্র নাথ মুর্মু (৪৫)। তিনি রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ হিসাবে কর্মরত ছিলেন। বুধবার রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তার এমারজেন্সি ডিউটি ছিল। সন্ধ্যায় ডিউটি সেরে ভাড়া বাড়িতে ফেরেন। রাত্রি ১০ টার পর জরুরি ডাক পেয়ে পায়ে হেঁটে হাসপাতালে যাচ্ছিলেন। সে সময় একটি মোটরবাইক তাঁকে ধাক্কা মারে। রাস্তায় পড়ে গিয়ে তাঁর মাথার পিছনে আঘাত লাগে। প্রচণ্ড রক্তক্ষরণ হয়। মোটরবাইক চালকও পড়ে গিয়ে রক্তাক্ত হয়। এলাকার বাসিন্দারা দুজনকেই হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানেই মৃত্যু হয় চিকিৎসক ধীরেন্দ্রনাথ মুর্মুর। পুলিশ মোটরবাইক চালককে আটক করেছে।

জানা গিয়েছে, মৃত চিকিৎসকের বাড়ি পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার নয়াগ্রাম থানার কুকুড়াখুড়ি গ্রামে। চার ভাই দুই বোনের মধ্যে সেজ ধীরেন্দ্রনাথবাবু। অভাবের সংসারে সংগ্রাম করে ডাক্তারি পড়ে বাড়িতে আর্থিক সচ্ছ্বলতা ফেরাতে শুরু করেছিলেন। বড় ও মেজ ভাই চাষাবাদ করেন। ছোট ভাই শিক্ষকতা করেন। দুই বোনের বিয়ে হয়ে গিয়েছে। এখনো বিয়ে করেননি মৃত ধীরেন্দ্রনাথ।

বাবা লক্ষণ মুর্মু বলেন, “অনেক কষ্ট করে ছেলেকে ডাক্তারি পড়িয়েছি। ছেলের জন্য সংসারে আর্থিক অভাব দূর হচ্ছিল। কিভাবে দুর্ঘটনা ঘটল বুঝতে পারছি না। সব শেষ হয়ে গেল।” যদিও মোটরবাইক চালক সঞ্জু শেখ বলেন, “আমার গাড়িতে ধাক্কা লাগেনি। আমাকেই বরং একটি লরি ধাক্কা মেরে পালিয়ে যায়।” প্রত্যক্ষদর্শী আবুল আলিম বলেন, “মোটরবাইক দ্রুতগতিতে এসে চিকিৎসককে ধাক্কা মারে।” হাসপাতাল সুপার শোর্মিলা মৌলিক বলেন, “ওই চিকিৎসক হাসপাতালে ঢুকছিলেন। সে সময় গেটের সমনেই দুর্ঘটনা ঘটে।” দুর্ঘটনার পর বৃহস্পতিবার সকালে সেখানে যান মহকুমা শাসক নাভেদ আখতার, রামপুরহাট থানার আই সি আবু সেলিম। মহকুমা শাসক এলাকায় যান নিয়ন্ত্রনের নির্দেশ দেন। সেই মতো রাস্তার উপর গার্ড রেল দেওয়া হয়। রাস্তার উপর ফেলে রাখা ইমারত সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেন। সেই সঙ্গে যত্রতত্র টোটো না দাঁড় করানোর উপর নির্দেশ দেন।

Show More

Related Articles

মন্তব্য করুন

error: Content is protected !!
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker
WhatsApp us