জেলাপ্রথম পাতা

প্রাক্তন অধ্যাপকের বাড়িতে মদের বোতল ফেলার অভিযোগ বয়েজ হোস্টেলের বিরুদ্ধে

দেবশ্রী মজুমদার, শান্তিনিকেতন, ২২ মার্চঃ বিশ্বভারতীর কলাভবনের প্রাক্তন অধ্যাপক সেলিম মুন্সীর বাড়িতে বিভিন্ন আকারের মদের বোতল ফেলার অভিযোগ তার বাড়ির উল্টো দিকে পাঠভবনের একাদশ – দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রদের হোস্টেল উত্তরণের বিরুদ্ধে। এব্যাপারে হোস্টেল সেবকের কাছে মৌখিক অভিযোগের পাশাপাশি চলতি বছরের ৯ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে লিখিত অভিযোগ জানান সেলিম মুন্সি। তাঁর ছেলে সুজয় মুন্সি জানান, তাঁর বাবা একজন বিশিষ্ট অধ্যাপক ছিলেন কলাভবনের। তিনি ৪০ বছর ধরে পেন্টিংয়ের অধ্যাপক ছিলেন। ২০০৫ সালে অবসর নেন তিনি। তাঁর নীহারিকা আর্ট গ্যালারী খুব পরিচিত নাম দেশের মধ্যে। এরকম স্বনামধন্য একজন শিল্পীর বাড়িতে প্রতি নিয়ত মদের বোতল ফেলা হয়। বাড়িতে বাচ্চাদের পা কেটে যায়। হোস্টেলের সেবক শ্যামলাল রায়কে মৌখিক ভাবে জানানোর পর অত্যাচারের পরিমান আরও বেড়ে যায়। খালি মদের বোতল, হোমিও প্যাথির শিশি, ভাঙা পাইপ, চকোলেট বোম ইত্যাদি মাঝ রাতে তাঁদের বাড়িতে ফেলা হয়। এব্যাপারে উপাচার্যের কাছে লিখিত অভিযোগ জানিয়েও কোন লাভ হয়নি।

 

এই ঘটনায় তীব্র নিন্দার সৃষ্টি হয়েছে। সাধারণতঃ পাঠভবনের পড়ূয়ারা বিশ্বভারতীর নিজস্ব ঐতিহ্য নিয়ে বেড়ে ওঠে। সমস্যা হওয়ার কথা যখন পরবর্তীতে পড়ুয়ারা নতুন পরিবেশে আসে। কিন্তু পাঠভবনের হোস্টেল থেকে এমন ঘটনা ঘটায় বিস্মিত অনেকেই। শ্যামলাল রায় বলেন, সেলিম মুন্সি আমার শিক্ষক। একজন নমস্য ব্যক্তি। এব্যাপারে বিস্তারিত রিপোর্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। তবে হাতে নাতে ধরতে না পারলে খুব মুশকিল। উত্তর শিক্ষা বয়েজ বা উত্তরণ হোস্টেলে রাত দশটার পর ছাদ বন্ধ থাকে। এতটা দূরত্বে কি করে বোতল ছুঁড়ে মারতে পারে এটাও অবাক লাগছে। ওখানে সিসি টিভি নেই। তাই ঠিক বোঝা যাচ্ছে না। এব্যাপারে উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীকে ফোন করা হলে, তিনি ফোনে এসমস্ত কথা বলা যাবে না বলে জানান।

Show More

Related Articles

One Comment

মন্তব্য করুন

error: Content is protected !!
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker
WhatsApp us