ভারতে প্রতি মাথাপিছু স্বাস্থ্য খাতে খরচ হয় মাত্র তিন টাকা,মাসে ৯৩ টাকা ,বছরে ১১১২ টাকা। না, বিরোধী দলের রিপোর্ট নয়, এমন তথ্য প্রকাশ করেছে খোদ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। স্বাস্থ্যমন্ত্রী দ্বারা প্রকাশিত ন্যাশনাল হেলথ প্রোফাইলের হিসেব তুলে ধরেছে এই সত্য। সমীক্ষা বলছে কোনো রেস্টুরেন্টে একটা পিৎজার যা দাম তার চেয়ে একজন ভারতীয় নাগরিকের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক কম খরচ করা হয়। এই অর্থে রেস্টুরেন্টে এক বেলা খাবার তো দূরস্থান বেসরকারি জায়গায় একবারের জন্য কোনো চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা করার খরচও ওঠে না এতে।

২০০৯ সালে স্বাস্থ্য খাতে জিডিপির ১.০২ শতাংশ খরচ করা হত, নয় বছর পেরিয়ে ২০১৮তেও স্বাস্থ্য খাতের খরচ একই আছে । যেখানে ভারতের তুলনায় পৃথিবীর অন্যান্য গরিব দেশগুলো মোটামুটিভাবে স্বাস্থ্য খাতে জিডিপির ১.৪ শতাংশ খরচ করে। ভারতের চেয়ে অনেক ছোট প্রতিবেশী দেশ শ্রীলঙ্কাতেও প্রতি জন পিছু স্বাস্থ্য খাতে খরচ হয় ভারতের তুলনায় চার গুণ বেশি। পাশাপাশি ইন্দোনেশিতেও জন পিছু স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ ভারতের তুলনায় ২ শতাংশ বেশি। স্বাস্থ্য খাতে জিডিপির ৯.৪ শতাংশ খরচ করে মালদ্বীপ, ১.৬ শতাংশ শ্রীলংকা, ২.৫ শতাংশ ভুটান আর ২.৯ শতাংশ থাইল্যান্ড।

২০১৭-র জাতীয় স্বাস্থ্য নীতিতে ২০২৫-এর মধ্যে জিডিপির ২.৫% স্বাস্থ্যখাতে খরচ করার কথা বলা হয়েছিল। বাস্তব হল ভারত এখনও ২০১০-এর লক্ষ্যমাত্রা ২% -ই ছুতে পারেনি।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of