উত্তরপ্রদেশের বুলন্দশহরে গোহত্যা বন্ধের দাবিতে তথাকথিত গোরক্ষকদের আচমকা হামলায় এক পুলিশ অফিসার খুন হয়ে গেলেন সোমবার। থানায় উত্তেজিত গেরুয়া ফেট্টিবাঁধা জনতার আক্রমণে খুন হন এই পুলিশ অফিসার। তাঁকে গুলি করা হয়। নিহত অফিসারের নাম সুবোধ সিং। এরপর পুলিশ আত্মরক্ষায় পালটা গুলি চালালে এক গোরক্ষকের মৃত্যু হয়। নিহত গোরক্ষকের নাম সুমিত।ঘটনার তদন্তে তৈরি হল সিট। বিশেষ তদন্তকারী দল খতিয়ে দেখবে কেন সুবোধ সিংকে ফেলে সকলে বেরিয়ে গিয়েছিল,কিভাবে ঘটল সহিংস ঘটনাটি।

ঘটনার পর গোটা বুলন্দশহরের পরিস্থিতি উত্তেজনাকর হয়ে ওঠে। তথাকথিত গোরক্ষকেরা বিভিন্ন থানায় চড়াও হয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে– থানায় ইট-পাথর ছোড়া হয়। বহু জায়গায় আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় থানায়। গোরক্ষকদের দাবি– যে পুলিশ তাদের একজনকে খুন করেছে তাকে তাদের হাতে তুলে দিতে হবে। এদিকে তারা যে এক পুলিশ অফিসারকে খুন করল– তা নিয়ে তারা নীরব। এখন বুলন্দশহরে চলছে মুসলিমদের ইজতেমা। ইজতেমায় প্রায় এক লক্ষ ধর্মপ্রাণ মুসলিম জড়ো হয়েছেন। এটাই হয়তো এই গোলমাল তৈরির প্রধান কারণ। নয়তো এদিন সকালে হঠাৎ স্থানীয় মাঠে কী করে এক গরু বা বাছুরের কঙ্কাল উদ্ধার হল– তাও রহস্যজনক। সেই কঙ্কালটিকে নিয়েই গোরক্ষকরা মুহূর্তের মধ্যে জড়ো হয়ে উত্তেজনা ছড়াতে থাকে। এরপর গোরক্ষকরা একসঙ্গে মিলে থানায় গিয়ে কাছাকাছি সব মুসলিমদের বাড়ি তল্লাশি করার দাবি জানায়। তারা একটি ট্র্যাক্টরে করে ওই গরুর কঙ্কালটিকে নিয়ে যায় থানায়। পুলিশ সেই অন্যায় দাবি না মানায় এরপর গোরক্ষকরা পুলিশের উপর হামলা করে। এস এইচ ও সুবোধ  থানা থেকে বেরিয়ে এসে ওদের বোঝাতে এসেছিলেন। তাকে সরাসরি গুলি করা হয় গোরক্ষকদের মধ্য থেকে। সঙ্গে সঙ্গে তিনি লুটিয়ে পড়েন থানার মধ্যেই।

তা দেখেও গোরক্ষকরা রণে ভঙ্গ দেয়নি। বিক্ষোভ চালাতে থাকে। তখন পুলিশ বাধ্য হয় আত্মরক্ষায়। সাইনা থানায় এই ঘটনা ঘটেছে। এরপর বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে চলে আসে। পুলিশের কাছে মাথাব্যথার কারণ হল– ইজতেমার আখেরি মোনাজাত শেষে প্রায় লক্ষ ধর্মপ্রাণ মুসলিমের যে পথে েফরার কথা– সেই পথেই অবরোধ করে রয়েছে গোরক্ষকরা। দেশের বিভিন্ন রাজ্য থেকে ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা এই ইজতেমায় যোগ দিতে আসেন। এই কারণেই পুলিশ সাততাড়াতাড়ি এই অবরোধ সরাতে নেমে পড়ে। ব্যাপক পুলিশ বাহিনী এসে জায়গায় জায়গায় অবরোধ তুললেও মাঝে মাঝে ফের অবরোধ করা হচ্ছে। বুলন্দশহরের জেলাশাসক অনুজ ঝা বলেছেন– সকাল ১১টা নাগাদ এই ঘটনা ঘটে। সাইনা থানার এসএইচও সুবোধ সিংয়ের খুনিদের ছাড়া হবে না বলে তিনি দাবি করেন। অন্যদিকে বুলন্দশহরের এসএসপি কে বি সিংও বলেন– দুস্কূতীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of