মুসলিমদের সংখ্যালঘু মর্যাদা কাড়তে চান মন্ত্রী গিরিরাজ

0
773


লখনউ– ৫ মার্চঃ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হয়েও গিরিরাজ সিংয়ের অভিধানে মুখে লাগাম পরানোর বিষয়টিই নেই। তাই যখন যা মনে করেন– তাই বলে দেন। আর পুরোটাই মুসলিমদের বিরুদ্ধে। বারবার বিতর্কিত কথা বলা সত্ত্বেও তাঁকে কিন্তু কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা থেকে সরানো হয়নি। রবিবার সেই গিরিরাজ বললেন– ভারতে মুসলিমদের সংখ্যালঘু মর্যাদা রাখা হবে কি না তা নিয়ে নতুন করে ভাবার সময় এসেছে। টু্যইটারে এ দিন গিরিরাজ লিখেছেন– ‘জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে আইন না করলে গোটা দেশের হাল উত্তরপ্রদেশের কৈরানার মতো হবে।…ভারতে মুসলিমদের সংখ্যা এতই বেড়ে গিয়েছে যে ওদের আর সংখ্যালঘু বলা যায় না।’ গিরিরাজ লিখেছেন– ২০ কোটি মুসলিম সংখ্যালঘু মর্যাদা পাওয়ার যোগ্য কি না তা নিয়ে নতুন করে ভাবার সময় এসেছে। তাঁর প্রশ্ন– বিহারের কিষেণগঞ্জে মুসলিমরা ৮০ শতাংশ– তবু কেন সেখানে তঁাঁরা সংখ্যালঘু বলে গণ্য হবেন?
বিহারের নওয়াদার বিজেপি সাংসদ গিরিরাজ গত বছরের অক্টোবরে বলেছিলেন– মুসলিমদের সংখ্যা যে হারে বাড়ছে তাতে হিন্দুদের আরও বেশি করে সন্তান তৈরির কথা ভাবা উচিত। বিতর্কিত মন্তব্য করা গিরিরাজের স্বভাবদোষ। সেটার চেয়েও তাৎপর্যপূর্ণ হল– বিতর্কিত মন্তব্য করেও কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় তাঁর আসন পাকা। বিহারের ভোটের সময় নীতীশকে আক্রমণ করে তিনি বলেছিলেন– ‘উনি মোদিজির সঙ্গে দেহাতি মেয়েদের মতো আচরণ করছেন।’ তাতে বিহারে মেয়েরা প্রশ্ন তুলেছিল– ঝগডYটে শুধু দেহাতি মেয়েরাই হয়? পুরুষেরা হয় না? এরপর গিরিরাজ প্রশ্ন তুলেছিলেন– ‘সব জঙ্গি একটি ধর্মীয় সম্প্রদায়ের কেন?’ আর একবার তিনি বলেছিলেন– ‘ভারতে যারা মোদিজির বিরোধিতা করছেন তাঁরা সকলে পাকিস্তানে চলে যান। ভারতে তাঁদের জায়গা নেই।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here