অ্যাপোলোর প্রাক্তন পূর্বাঞ্চলীয় প্রধান র*পালি বসুকে জিজ্ঞাসাবাদ জন্য নোটিশ পাঠাল তদন্তকারীরা

0
363


(নির্মাল্য সেনগুপ্ত)
কলম প্রতিবেদক­ সঞ্জয়ের মৃতু্য তদন্তে অ্যাপোলো হাসপাতালের পাঁচ চিকিৎসককে জিজ্ঞাসাবাদে পর এবার ওই হাসপাতালের পদ থেকে সদ্য ইস্তফা দেওয়া পূর্বাঞ্চলীয় প্রধান র*পালি বসুকে নোটিশ পাঠাল পুলিশ। সবমিলিয়ে চাপে পড়ে গেল অ্যাপোলো হাসপাতাল। অতীতে কোনও বড় বেসরকারি হাসপাতালের বড়মাপের কর্ত্রীকে এইরকম পরিস্থিতিক সম্মুখীন হতে হয়নি। হাসপাতাল সূত্রে খবর– প্রাক্তন প্রধান র*পালি বসু সম্প্রতি ব্যক্তিগত কারণে বিদেশে ছিলেন। তিনি ইতিমধ্যেই শহরে ফিরেছেন। তারপরই পুলিশের পক্ষ থেকে তাঁর বালিগঞ্জের বাড়িতে নোটিশ পাঠানো হয়েছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই তাঁকে ফুলবাগান থানায় আসতে বলা হয়েছে বলে পুলিশ সূত্রে খবর।
এ দিকে রবিবার ফুলবাগান থানায় তিনজন চিকিৎসককে ডেকে পাঠিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হল। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পীযূষ কু[ুর নেতৃত্বেই জিজ্ঞাসাবাদ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। এই নিয়ে দিন কয়েকের মধ্যেই মোট পাঁচজন চিকিৎসককে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে যারা থানায় এসেছিলেন– তার মধ্যে ছিলেন হাসপাতালের চিকিৎসক |ষা গোয়েঙ্কা– মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক অরিজিৎ বসু– এমারজেন্সি বিভাগের চিকিৎসক অভীক মজুমদার এক নিরাপত্তা বিভাগের আধিকারিক সহ আরও এক চিকিৎসক। এ দিন দুপুর আড়াইটের পর সাদা ইনোভা গাড়িতে চেপে ফুলবাগান থানায় আসেন তারা। এরপর প্রায় ঘণ্টা দু’য়েকের তদন্তপ্রক্রিয়া চলার পর সন্ধে পৌনে ছ’টা নাগাদ থানা থেকে তারা বেরিয়ে যান। পুলিশ জানিয়েছে– এদের প্রত্যেকের বয়ান রেকর্ড করা হয়েছে। তাতে কোনও অসংগতি রয়েছে কি না– তা খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা। পুলিশ সূত্র বলছে– সঞ্জয়ের চিকিৎসা চলাকালীন যে ‘বেড টিকিট’ (চিকিৎসার সময় চিকিৎসকদের মতামত ও চিকিৎসা সংক্রান্ত বেশিরভাগ তথ্য সমন্বিত নথি) ব্যবহার হয়েছিল। সেগুলি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। বিলিং সেকশন– রিসেপশন সহ কয়েকটি বিভাগের আরও কয়েকজনের নাম নতুন করে তদন্তে উঠে এসেছে। আগামী দিনে আরও কয়েকজন চিকিৎসক– হাসপাতাল কর্মীদের ডেকে পাঠানো হবে। পুলিশ সূত্রে খবর– অতিরিক্ত রক্তক্ষরণেই মৃতু্য হয় সঞ্জয়ের– ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট এমনই উল্লেখ। তার ভিত্তিতেই মূলত গাফিলতির তদন্ত প্রাথমিকভাবে চালাচ্ছে পুলিশ। তবে তদন্তে গতিপ্রকৃতি অনুযায়ী পুলিশ নতুন নতুন অভিযোগ সংযোজন করতে পারে।
এ দিকে ফের অ্যাপোলো হাসপাতাল নতুন বিতর্কে জড়াল। হাসপাতালের ডিসচার্জ বিলে দেবপ্রিয় দত্ত নামে এক পুরুষ রোগীকে ‘মহিলা’ লেখায় মেডিক্যাল ইনসিওরেন্সের টাকা পাচ্ছেন না। গত ফেব্র&য়ারি মাসে অ্যাপোলোয় শ্বাসকষ্টের চিকিৎসা করতে গিয়ে কসবার ওই রোগী এই গাফিলতির শিকার হলেন। অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অ্যাপোলো কর্তৃপক্ষ। এই ঘটনায় রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের দ্বারস্থ হয়েছেন ওই রোগী। তিনি প্রধান সচিবের কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন। দেবপ্রিয়বাবুর অভিযোগ তিনি দু’দিন হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। তার জন্য তাঁকে বিল চোকাতে হয়েছে ৪৪ হাজার টাকা। কিন্তু এখন সমস্যা সেই বিলের টাকা ইনসিওরেন্স কোম্পানি থেকে আদায় করতে পারছেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here