‘মান বাঁচাতে’ মন্দিরে মোদি– খোঁচা মায়াবতীর মোদির বারাণসীরর্ যালিতে জনসমুদ্র

0
214

বারাণসী– ৪ মার্চ­ উত্তরপ্রদেশের নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয় পেতে শেষবেলায় মন্দির অস্ত্রেই শান দিলেন নরেন্দ্র মোদি। শনিবার ইউপি’র ভোটপ্রচারে কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরে পুজো-আরতির পর সোজা চলে গেলেন কাল ভৈরবের মন্দিরে। একদিনে মোদির দুই মন্দির দর্শন দেখে মায়াবতী বলেই বসলেন– ‘যতই প্রার্থনা করো। কাজের কাজ কিছুই হবে না।’
বিগত বেশকিছু দিন ধরেই চলছিল সাজ সাজ রব। প্রধানমন্ত্রীর লোকসভা কেন্দ্র বারাণসীতে আসবেন শুনে ভিড় জমাতে উঠেপড়ে লেগেছিল গেরুয়া শিবির। শনিবার মোদির সভায় জনসমুদ্র দেখে বোঝাই গিয়েছে– বিজেপি শিবিরের পরিকল্পনা। এ দিন ‘সানরুফ’ খোলা গাড়িতে মোদি বারাণসীতে উপস্থিত হতেই চারদিক থেকে শুরু হয় পুষ্পবৃষ্টি। রাজপথ থেকে সরু গলি সব বাড়ির বারান্দা থেকেই মোদির জয়ধ্বনি শুরু হয়। মোদির মিছিলে ‘হর হর মোদি– ঘর ঘর মোদি’ স্লোগান থেকে প্রথম থেকেই নিজেদের দূরে রাখতে চেষ্টা করেছে বিজেপি। কিন্তু রোড শোয়ে কর্মী সমর্থকদের লোকসভা ভোটের সেই স্লোগান থেকে থামানো যায়নি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গঙ্গাতীরের শহরে ঘাঁটি গেড়েছে একডজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। লন্ডন থেকে ফিরেই বারাণসীতে পৌঁছে গিয়েছেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।
এ দিন উত্তরপ্রদেশের ষষ্ঠ দফার নির্বাচনের দিনই বারাণসীতে যান অখিলেশ-রাহুলও। তাঁদের সঙ্গে যোগ দেন অখিলেশ জায়া ডিম্পল যাদব। পিছিয়ে থাকেননি বহুজন সমাজপার্টির নেত্রী মায়াবতীও। পরে জৌনপুরের সভায় বিরোধীদের একহাত নেন মোদি। বিজেপির কাণ্ডারির অভিযোগ– উত্তরপ্রদেশের উন্নয়নে ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ’ই তার উন্নয়নের ফরমুলা। কিন্তু সপা’র রাজত্বে রাজ্যে কেবলই ‘কুছ কা সাথ কুছ কা বিকাশ হয়েছে’। এই বলেই অবশ্য থেমে থাকেননি মোদি। রাহুল-অখিলেশকে সপা’র ধর্ষণে অভিযুক্ত নেতা গায়ত্রী প্রজাপতি নিয়েও কটাক্ষ করেন তিনি। মোদি বলেন– দেশের মানুষ আগে গায়ত্রী মন্ত্রই জপত। কিন্তু সপা-কংগ্রেস নতুন করে ‘গায়ত্রী প্রজাপতি মন্ত্র’ শেখাচ্ছে দেশবাসীকে। উত্তরপ্রদেশের পুলিশ গরু খুঁজে বের করতে পারলেও প্রজাপতি খুঁজে বের করতে পারছে না।’ প্রসঙ্গত– উত্তরপ্রদেশে কৃষকদের ঋণ মুকুব করার জন্য প্রথম থেকে সরব ছিলেন রাহুল ও অখিলেশ। রাজ্যের ভোটে মোদির বিরুদ্ধে এই কৃষক কার্ড ব্যবহারও করেছেন তাঁরা। এ দিন জৌনপুরের সভায় মোদি বলেন– উত্তরপ্রদেশে ক্ষমতায় আসছে বিজেপি। তখতে বসলেই কৃষকদের ঋণ মকুব করে দেওয়া হবে।’
যদিও রোড শোয়ে মোদিকে এর জবাবও দিয়েছেন অখিলেশ। মোদির উন্নয়নের দাবি আসলে ফাঁকা আওয়াজ বলে মন্তব্য করনে অখিলেশ। প্রধানমন্ত্রীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সপা’র সুপ্রিমো বলেন– ‘আগে দেশে কী কী উন্নয়ন হয়েছে তার শ্বেতপত্র প্রকাশ করুন।’ মোদিকে একহাত নিতে ছাড়েননি বসপা নেতৃ মায়াবতীও। মোদিকে কটাক্ষ করে বহেনজি বলেন– যতই মন্দিরে প্রার্থনা করো– ফল পাবে না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here