অ্যাপোলো হাসপাতালে কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ফুলবাগান থানায় অভিযোগ দায়ের

0
173

কলম প্রতিবেদক­ সঞ্জয় রায়ের মৃতু্যর ঘটনায় অ্যাপোলো হাসপাতালে কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ফুলবাগান থানায় তাঁর স্ত্রী রুবি রায় অভিযোগ দায়ের করলেন। তাঁর অভিযোগ– হাসপাতালে কর্তৃপক্ষের চিকিৎসার খরচ নিয়ে অহেতুক টালবাহানার জেরেই তাঁর স্বামী সঞ্জয়ের মৃতু্য হয়েছে। এ দিকে– এ দিনই অ্যাপোলো কর্তৃপক্ষ অতি তৎপরতার সঙ্গে ৪ লক্ষ ২৩ হাজার টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য সঞ্জয় রায়ের ডানকুনিরû বাড়িতে যান। কিন্তু ওই সময় সঞ্জয়ের পরিবারের লোকেরা কলকাতার ফুলবাগান চলে আসেন অ্যাপেলোর বিরুদ্ধে থানায় ডায়েরি করতে। উল্লেখ্য– রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিব আর এস শুক্লা শনিবারই অ্যাপোলোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকের পর জানিয়েছিলেন– প্রয়োজনে আইনি ব্যবস্থা নেওযা হতে পারে। সেই দিক থেকে সঞ্জয়ের স্ত্রী অ্যাপোলোর বিরুদ্ধে এ দিনের অভিযোগ দায়ের যথেষ্টই ইঙ্গিত পূর্ণ।
শনিবার স্বাস্থ্য ভবনে অ্যাপোলোর তিন কর্তাকে সঞ্জয়ের মৃতু্যর প্রসঙ্গে রিপোর্ট চেয়ে তলব করা হয়েছিল। ওই বৈঠকে হাসপাতালের পক্ষ থেকে যে সাফাই দিয়েছিল রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিব আর। এস শুক্লা ও রাজ্য স্বাস্থ্য অধিকর্তা বিশ্বরঞ্জন শতপথির এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য দফতরের পদস্থ কর্তাদের কাছে আদৌও তা আমল পায়নি। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে রাজ্যের মুখ্যসচিব বাসুদেব বন্দ্যোপাধ্যায় এবং স্বাস্থ্যসচিব আর এস শুক্লা সঞ্জয়ের চিকিৎসার ব্যাপারে অ্যাপেলোর ভূমিকা নিয়ে যে প্রাথমিক রিপোর্ট দিয়েছিলেন– সেই রিপোর্টেও এই হাসপাতালের গাফিলতির কথা বলা হয়েছিল। শনিবারই স্বাস্থ্য অধিকর্তা বিশ্বরঞ্জন শতপথি থেকে পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দেওয়া অ্যাপোলো কর্তৃপক্ষ চিকিৎসা সংক্রান্ত যেসব কাগজপত্র দিয়েছে তার মধ্যে যথেষ্ট অসংগতি এবং গাফিলতিও আছে। তাঁর মন্তব্য– ছিল আরও কম খরচে চিকিৎসা করানো যেতে পারতো। এরই পরিপ্রেক্ষিতে অ্যাপোলো কর্তৃপক্ষ নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে জানিয়েছিলেন– কিছু রিপোর্ট সংশোধন করে পুণরায় স্বাস্থ্য দফতরের কাছে জমা দেওয়া হবে।
রাজ্য সরকার যে অ্যাপোলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে চলেছে তা বুঝতে পেরেই তড়িঘড়ি ডানকুনি ছোটেন অ্যাপোলো কর্তারা। পরিবারের তরফে টাকা ফেরত নেবে না বলার পরেও সেখানে যাওয়াটা যে নিছকই অ্যাপোলোর আইনি বোঝা গিয়েছে কর্তাদের থানায় যাওয়ায়। অ্যাপোলো কর্তারা এ দিন থানায় গিয়ে– তাঁরা যে টাকা ফেরত দিতে এসেছিলেন তা রেজিস্টার করে আসেন। ডানুকুনি পুলিশের সেকেন্ড অফিসার জানিয়েছেন– অ্যাপোলো কর্তারা এ দিন থানায় এসেছিলেন। এবং তাঁরা ডানকুনিতে আসার কথা রেজিস্টার করে যান।
এ দিন অ্যাপোলো কর্তৃপক্ষের ডানকুনি যাত্রা নিয়ে তাঁদের সিইও জয় বসু বলেন– হাসপাতালের তরফে তিন কর্তা সঞ্জয়ের বাড়ি গিয়েছিল। কিন্তু সঞ্জয়ের বাড়িতে কাউকে না পেয়ে তাঁরা ডানকুনি থানায় টাকাটা জমা রাখার চেষ্টা হয়। তবে থানার তরফে এই দায়িত্ব নিতে অস্বীকার করা হয়।
রবিবার বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ সঞ্জয়ের স্ত্রী ও পরিবারের লোকেরা ফুলবাগান থানায় পৌঁছন। এ দিন মৃতু্য নিয়ে তাঁরা লিখিত অভিযোগ করেছেন। সঞ্জয়ের স্ত্রী যখন থানায় আসেন– সেসময় থানায় উপস্থিত ছিলেন ডিসি ইএসডি দেবস্মীতা দাস। এ দিন থানা থেকে বেরোনোর পথে রুবি রায় জানিয়েছেন। অ্যাপোলোর কারণেই তিনি স্বামীকে হারিয়েছেন– অতএব এই ঘটনার শেষ দেখেই ছাড়বেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here