কাশ্মীরে মসজিদ মাদ্রাসা নিয়ন্ত্রণ চায় কেন্দ্র

0
185

নয়াদিল্লি– ২৫ ফেব্র&য়ারিঃ কাশ্মীর উপত্যকার বর্তমান পরিস্থিতি বিচার করে সেখানে মসজিদ মাদ্রাসাগুলোর নিয়ন্ত্রণ কায়েম রাখতে চায় কেন্দ্র। এই মর্মে একটি প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে জাতীয় সুরক্ষা পরিষদের প্রধান অজিত দোভালের কাছে। কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে মসজিদ– মাদ্রাসা– সংবাদপত্র ও টেলিভিশন-এর মাধ্যমে নরমপন্থী মানুষদের কাছে পৌঁছনো সম্ভব। কাশ্মীর উপত্যকায় স্থানীয় পর্যায়ের আলোচনার পর যে প্রস্তাব পাঠানো হয় তারই উপর ভিত্তি করে এই রিপোর্ট তৈরি হয়েছে বলে জাতীয় সুরক্ষা পরিষদ সূত্রে জানা গিয়েছে।

কাশ্মীরে চলতে থাকা অবিরাম অশান্তি নিয়ে এবং সেখানে বিক্ষোভ ও বিচ্ছিন্নতাবাদী মনোভাব বাড়তে থাকায় সরকার কার্যকরী কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চাইছে। তার মধ্যে রয়েছে মসজিদ মাদ্রাসা নিয়ন্ত্রণের প্রস্তাব। কেন্দ্র সরকার মনে করছে মসজিদের ইমামরা তাঁদের নামাযের খুতবায় নাকি ওহাবী চিন্তাধারা ছড়িয়ে দিচ্ছেন কাশ্মীরে। আর সেটা নাকি আকৃষ্ট করছে যুব সম্প্রদায়কে। তাই প্রথমে মসজিদের ইমামদের মাধ্যমে কট্টরপন্থায় রাশ টানতে চায়। মসজিদ থেকে কোনও ধরনের উসকানিমূলক ও প্ররোচক বত্তৃ«তা দেওয়া হচ্ছে কি না তার তথ্য রাখতে চায় কেন্দ্র। মাদ্রাসার মৌলবিও আলেমরা কী ধরনের শিক্ষা দিচ্ছেন তার উপরও নজর রাখা হবে।
সংবাদপত্র ও টেলিভিশনের মাধ্যমে উত্তেজনাকর সংবাদ ও ছবি প্রকাশ এবং কোনও ধরনের নেগেটিভ প্রপাগান্ডা যাতে না হয় েসদিকেও নজর রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। পাথর ছোড়ায় জড়িতদের পাবলিক সেফটি অ্যাক্টে মামলা দেওয়া এবং কিশোরদের জুভেনাইল হোমে পাঠিয়ে তাদের মগজ ধোলাই-এর চেষ্টা করার দিকে জোর দিতে বলা হয়েছে। কেন্দ্র সরকার যাদের মধ্যমপন্থী বা নরমপন্থী ভাববে তাদেরকে উন্নয়নমূলক কাজে শামিল করে নরমপন্থী সংখ্যা আরও বিস্তার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কট্টরবাদীদের আরও কঠোরভাবে মোকাবেলা করার বিভিন্ন উপায়ও বলা হয়েছে। এককথায় কাশ্মীরে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখার মাস্টার প্ল্যান নিয়ে আলোচনা চলছে কেন্দ্রীয় স্তরে। শিয়া-সুন্নি ওয়াহাবি নরমপন্থী গরমপন্থী ইত্যাদি বিশেষণ আরোপ করে নির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে এগোতে চাইছে কেন্দ্র সরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here