পাওয়ার গ্রিডের ভবিষ্যৎ গ্রামবাসীদের ওপর ছাড়ল তৃণমূল শীর্ষনেতৃত্ব কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে মমতা রেয়াত করবে না­ মুকুল

0
143

মহাম্মাদ ফিরোজ– ভাঙড়
ভাঙড়ে পাওয়ার গ্রিড নিযেü তৃণমূলের জনসভাযü চার হেভিওযেüট নেতা উপস্থিত হযেü মমতার প্রতি আস্থা ও ভরসা রাখার আহ্বান সহ পাওয়ার গ্রিড হবে কি হবে না গ্রামবাসীদের উপরে ছাড়লেন। অবশ্য এ দিনের এই সভাযü উপস্থিত ছিলেন না আরাবুল সহ তাঁর অনুগামীরা। এর পাশাপাশি ভাঙড়ে বিধাযüক তথা মন্ত্রী আবদুর রেজ্জাক মোল্লাও উপস্থিত ছিলেন না। অবশ্য অহিদুল ইসলাম– নান্নু হোসেন– কাইজার আহমেদ সহ আবদুল রহিমরা উপস্থিত ছিলেন। এ দিন সভাস্থলে দুই মিনিট নীরবতা পালন করা হয় শহিদ দুই যুবকের উদ্দেশ্যে। সভায় উপচে পড়া ভিড় দেখে আপ্ল$ত তৃণমূল নেতৃত্ব বলেন এখন ভোট হলে তিরিশ হাজার ভোটে আমরা জযüী হব। এ দিন মুকুল রাযü বলেন– আমরা কাউকে ধমকাতে চমকাতে আসিনি। ভাঙড়ের সমস্যা তো মিটে গিযেüছে। এখন সব থেকে বড় সমস্যা সাম্প্রদায়িকতা।
বৃহস্পতিবার তৃণমূলের পূর্ব ঘোষণামতো শ্যামনগর স্কুল মাঠে ভাঙড়ের ১৩ টি অঞ্চলের কযেüক হাজার জনগণের উপস্থিতিতে জনসভা হযü। সেখানে রাজ্য নেতৃত্ব মমতা বন্দ্যোপাধ্যাযü-এর জীবন সংগ্রামের ইতিহাস বর্ণনা করে তাঁর প্রতি আশ্বস্ত ভরসা রাখার আহ্বান সহ বিরোধীদের তীব্র ভাষাযü আক্রমণ করেন। এর পাশাপাশি ভাঙড় উত্তপ্ত করার জন্য নকশালদের কড়া হুঁশিয়ারি দিল রাজ্য নেতৃত্ব। এ দিনের এই সভা আন্দোলন-এর শক্ত গাঁট খামারআইটে– মাছিভাঙা– নতুনহাট– ঢিবঢিবা সহ পদ্মপুকুর এর থেকে কিছু মানুষ উপস্থিত হযü। বিশেষত যে ঢিবঢিবে বাজার থেকে একটি বিশাল মিছিল করে গ্রামবাসীরা সভাস্থলে আসে।
এ দিনের সভাযü আরাবুল বিরোধী পোলেরহাট ২ নং অঞ্চলের কনভেনর হবিবর রহমানকে সভা পরিচালনার দাযিüত্ব দেন জেলা সভাপতি শোভন চ্যাটার্জি। তিনি এলাকার উন্নয়ন-এর দাবিতে মঞ্চ থেকে মন্ত্রীদের উদ্দেশ্য বার্তা দিয়ে বলেন– পোলেরহাট ২ নং অঞ্চলে কোনও হাইস্কুল নেই– এর পাশাপাশি রাস্তাঘাট খুবই খারাপ। এর পরই মঞ্চে উপস্থিত রাজ্যের নগরায়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন– বোযüালঘাটা শ্যামনগর-এর রাস্তা খুব শীঘ্রই করে দেওয়া হবে।
এ দিন জেলা সভাপতি তথা কলকাতার মেয়র শোভন চ্যাটার্জি দাবি করেন ভাঙড়ের মানুষ দাঁড়িয়ে থাকে তিন বছর আগে পাওয়ার গ্রিড করে দিয়েছে – তাঁর প্রশ্ন এখন কেন আন্দোলন। তিনি আবার বলেন যা হয়েছে বাঞ্ছনীয় নয়। কিছু বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তি এসে ভাঙড়ের উন্নয়নকে স্তব্ধ করে দিয়েছে। তাঁর দাবি পাওয়ার গ্রিড মানুষের কোনও ক্ষোভ নেই। এ দিন তিনি কড়া ভাষাযü বলেন– যারা নকশালদের মদদ দেবে তাঁদের আমরা দায়িত্ব নিতে পারব না। এ দিন ফিরহাদ হাকিম বলেন– তৃণমূল কংগ্রেস করতে গেলে মানুষের উপর অত্যাচার নয় ভালোবেসে করতে হয়। আমরা ভোর দিন পাটি অফিসে থাকি কোনও অভিযোগ থাকলে সরাসরি এসে বলুন কিন্তু বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নিয়ে এসে এলাকায় আগুন জ্বালাবেন না।
এ দিন মুকুল রায় বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেন– হঠাৎ করে কেন এই সভা সামনে তো কোনও নির্বাচন নেই। তার বক্তব্য এখনই ভোট হলে আমার তিরিশ হাজার ভোটে জয়ী হব। বিরোধীরা ঘোলা জ্বলে মাছ ধরতে এলাকাযü আসছে। মমতা তো বলে দিযেüছে মানুষ না চাইলে পাওযüার গ্রিড হবে না তার পরেই কেন এই আন্দোলন। এ দিন তিনি বলেন– বিচারক মমতা– কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে মমতা রেযüাত করবে না। এর পাশাপাশি তিনি বলেন ওই অঞ্চলে সভা করে মানুষ এর সঙ্গে মোলাকাত করা হবে। এর পাশাপাশি এ দিন তিনি মঞ্চ থেকে আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্য আওযüাজ তুলেন– ওহে বিপদগামী যুবক– মূল স্টেËাতে ফিরে আসুন।
এ দিন তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি ভাঙড় কাণ্ডের জন্য আরাবুল ইসলাম-এর নাম না করে কড়া ভাষাযü বার্তা দিযেü বলেন– আপনার আযüু বেশি দিন নেই। সমযü লাগবে না একটু ধাক্কা মারে ফেলে দিতে। এর পাশাপাশি তিনি গ্রামবাসীদের উদ্দেশ্যে বলেন– সরকারের খামতি থাকলে সেই খামতি মিটিযেü দেওযüা হবে। এর পাশাপাশি নাম না করে রেজ্জাক মোল্লার উদ্দেশ্যে বলেন– পাঁচ বছরের জন্য জিতে সÁËাট হযেü গিযেüছেন তা ভাবলে চলবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here