এক রকেটে ১০৪ উপগ্রহ ইতিহাস তৈরি করল ইসরো– ভোটের সভায় বড়াই মোদির

0
144

শ্রীহরিকোটা– ১৫ ফেব্র&য়ারিঃ ইতিহাস তৈরি করলেন ইসরোর মহাকাশবিজ্ঞানীরা। বুধবার সকালে অন্ধেÉর শ্রীহরিকোটা উৎক্ষেপণকেন্দ্র থেকে এক রকেটে ১০৪টি উপগ্রহ ছেড়ে বিশ্বরেকর্ড করলেন তাঁরা। এর আগে একসঙ্গে এত উপগ্রহ– বিশেষ করে এক রকেটের সাহায্যে ছাড়া হয়নি। উৎক্ষেপণের পর মহাকাশে যাওয়ার পথে কোনওটির কোনও বিঘ্ন হয়নি। একটির সঙ্গে অন্যটির সংঘাত হয়নি। ১০৪টির মধ্যে মাত্র তিনটি ভারতের উপগ্রহ। আর বাকি সব উপগ্রহই অন্য দেশের বিভিন্ন সংস্থার। ইসরো বাণিজ্যিক ভিত্তিতে উপগ্রহ উৎক্ষেপণ শুরু করেছে কিছুকাল আগেই। সেই প্রয়াস যে বেশ ফলপ্রসূ হয়ে উঠেছে এতগুলি উপগ্রহ উৎক্ষেপণ তারই প্রমাণ। ১০৪টির মধ্যে ৮৮টি উপগ্রহ আমেরিকার সানফ্রান্সিসকোর প্ল্যানেট ল্যাব নামে এক সংস্থার। এই সংস্থা বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বিভিন্ন দেশকে কৃষিসংক্রান্ত খবরাখবর– জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ইত্যাদি নানা প্রশ্নে খবর সরবরাহ করে থাকে।
বুধবারের ইসরোর এই সাফল্যের কথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি উত্তরপ্রদেশের কনৌজে বিজেপির এক নির্বাচনী জনসভাতেও বলতে ছাড়েননি। তিনি বলেন– কখনও এ দেশে যা হয়নি তা-ই হচ্ছে। ইসরো এ দিন যেসব উপগ্রহ ছেড়েছে তার বেশিরভাগই বিদেশের। এ ছাড়া রাষ্টÉপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ও বিজ্ঞানীদের অভিনন্দন জানান। অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন সহ বলিউডের প্রায় সমস্ত অভিনেতা-অভিনেত্রী ইসরোর সাফল্যের ভূয়সী প্রশংসা করে টু্যইট করেন। ইসরোর প্রজেক্ট ডিরেক্টর বি জয়াকুমার বলেন– ‘আজ ইসরো ইতিহাস সৃষ্টি করল।’ আরও গর্বের বিষয় হল যেসব উপগ্রহ এ দিন উৎক্ষেপণ করা হয় তার অন্তত দুই-তৃতীয়াংশের যন্ত্রাংশ তৈরি করেছে ভারতীয় সংস্থা লারসেন অ্যান্ড টুবরো ও গোদরেজ অ্যান্ড বয়েস। ভারতের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে– বছরে ১০০ কোটি ডলারের মতো খরচ করে ভারত মহাকাশ গবেষণায়। আর আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা এ বছর মহাকাশ গবেষণায় খরচ করছে ১৯৩০ কোটি ডলার। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে ভারত মঙ্গলে যে মহাকাশযান পাঠিয়েছে তা এখনও তার কক্ষপথে ঘুরছে। এর আগে আমেরিকা– রাশিয়া ও ইউরোপীয় এজেন্সি তা করতে সক্ষম হয়েছে। ভারত মঙ্গল অভিযানের জন্য মোট খরচ বরাদ্দ করেছিল ৭ কোটি ৪০ লক্ষ ডলার। হলিউডের ব্লকবাস্টার ছবি ‘গ্র্যাভিটি’ তৈরির জন্য খরচ হয়েছিল ১০ কোটি ডলার। অর্থাৎ একটি ফিল্ম তৈরির চেয়েও কম খরচ হয়েছিল এই ভারতের এত বড় প্রকল্পে। কম খরচে এত ফলপ্রসূ গবেষণা– এখানেই সাফল্য ভারতের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here