স্বামীর পিটুনি খেলে গর্বিত হওয়া উচিত! রুশ পত্রিকার নিবন্ধে বিতর্ক

0
161

– ৯ ফেব্র&য়ারিঃ প্রেসিডেন্ট ভÏাদিমির পুতিন সম্প্রতি পার্লামেন্টে পাস হওয়া পারিবারিক হিংসা এবং অপরাধ সংক্রান্ত একটি বিতর্কিত বিলে অনুমোদন দিয়েছেন। পুতিনের হয়ে সাফাই গাইতে গিয়ে রাশিয়ার একটি প্রথম শ্রেণির সংবাদপত্রও এবার বিতর্কে জড়াল। ‘কমসোমোলাসকা প্রাভদা’-তে লেখা হয়েছে– যেসব মহিলার পারিবারিক নির্যাতনের শিকার এবং স্বামীর মারে গায়ে কালসিটে পড়েছে তাদের গর্বিত হওয়া উচিত। প্রকাশিত নিবন্ধে বলা হয়েছে যে– নির্যাতিতা মহিলাদের এই ভেবে সান্ত্বনা পাওয়া উচিত যে– তারা ভবিষ্যতে পুত্র সন্তানের জন্ম দিতে পারবেন! এক্ষেত্রে ২০০৫ সালে প্রকাশিত বিতর্কিত মনোবিদ সাতোসি কানাজাওয়ার গবেষণা উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। ওই গবেষণায় বলা হয়েছিল– উগ্র প্রকৃতির– অত্যাচারী পুরুষদের পুত্রসন্তান জন্ম দেওয়ার ক্ষমতা অন্যদের তুলনায় বেশি। ইয়ারোসলাভ কোরোবাটোভ তাঁর নিবন্ধে লিখেছেন– ‘যদি তুমি স্বামীর দ্বারা অত্যাচারিত হও– তাহলে বুঝবে যে সে তোমাকে খুব ভালোবাসে’।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভÏাদিমির পুতিন মঙ্গলবার ওই নতুন আইনে স্বাক্ষর করেছেন। আইনে বলা হয়েছে– স্বামীর অত্যাচারে স্ত্রীর যদি মারাত্মক কোনও ক্ষতি না হয় তাহলে সেই অপরাধ ফৌজদারির নয়– দেওয়ানি অপরাধ হিসাবে গণ্য হবে। প্রেসিডেন্ট পুতিনের ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টির সদস্যরা জানিয়েছেন– এই নয়া আইনের দ্বারা রাশিয়ার নাগরিকদের পারিবারিক জীবনের উন্নতি সাধন হবে। এক্ষেত্রে ব্যক্তি সাধারণের পারিবারিক জীবনে রাষ্টেÉর হস্তক্ষেপ হÉাস পাবে। আর সন্তানরা নিয়মানুবর্তিতা শিখতে পারবে।
সমালোচকরা বলছেন– এর ফলে রাশিয়ার আপামর সামাজিক জীবন ক্ষতিগ্রস্ত হবে। নির্যাতিতা মহিলারা অত্যাচারিত হলেও এরপর থেকে অভিযোগ করতে ভয় পাবেন।
রাষ্টÉসংঘের ২০১০ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী– স্বামী শ্বশুরবাড়ির আত্মীয়দের হাতে নির্যাতিত হয়ে প্রতিবছর রাশিয়ায় ১৪ হাজার মহিলা প্রাণ হারান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here