হায়দরাবাদে আজ ঐতিহাসিক টেস্টে ভারত ও বাংলাদেশ

0
151

কলম প্রতিবেদক­ আর কয়েকদিনের মধ্যেই ভারতে আসবে অস্ট্রেলিয়া। মাত্র দু’টো সপ্তাহ বাকি। সদ্য শেষ হয়েছে ভারত-ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টি-২০ সিরিজ। তার মাঝেই রিফ্রেশমেন্টের জন্য বাংলাদেশের বিরুদ্ধে একমাত্র টেস্ট। ঐতিহাসিক টেস্ট। ঐতিহাসিক এই কারণেই কেন না প্রথমবার ভারতের মাটিতে কোনও টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। আরও উল্লেখযোগ্য ব্যাপার হল উপমহাদেশের মাটিতে সাত বছর বাদে প্রথম কোনও টেস্ট আয়োজিত হতে যাচ্ছে– যেখানে উপমহাদেশের দুই দেশ খেলতে চলেছে। শেষবার শ্রীলঙ্কা খেলেছিল ভারতের বিরুদ্ধে সাত বছর আগে। মুম্বইয়ের ব্র্যাবোর্ন স্টেডিয়ামে শেষবার খেলাটা হয়েছিল ভারত ও শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে। তারপর ভারতীয় উপমহাদেশের ওপর দিয়ে অনেক জল গড়িয়েছে। ভারত পাক সিরিজ করা নিয়ে তৈরি হয়েছে টালবাহানা। একবার বলা হয় সিরিজ হবে– আবার পরক্ষণেই তা ভেস্তে যায়। সবমিলিয়ে উপমহাদেশের বুকে দু’টো উপমহাদেশীয় টিম টেস্ট খেলছে এই দৃশ্য দেখার মতো।
তবে ভারতের দিকে যতটা নজর তার চেয়ে অনেক বেশি নজর থাকছে বাংলাদেশের দিকে। কারণ বাংলাদেশ টেস্ট টিম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৭টা বছর আগে। আর সতেরো বছর পরে এই প্রথম ভারতের মাটিতে টেস্ট খেলছেন শাকিবরা। যে সময় বাংলাদেশ টেস্ট খেলার অনুমতি পেয়েছে সে সময় ভারতীয় ক্যাপ্টেন ছিলেন ধোনি। সেই ধোনি এখন আর ক্যাপ্টেন তো ননই– টেস্ট থেকেও অবসর নিয়ে নিয়েছেন। নতুন ক্যাপ্টেন বিরাট। বাংলাদেশ যখন টেস্ট খেলিয়ে দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে– তখন ভারতীয় দলে বিরাট কোথায়? বিরাট তখন একটি বাচ্চা ছেলে। জাতীয় দলে আসার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আর এখন সেই বিরাটের ক্যাপ্টেনসিতে খেলবে ভারত। সতেরো বছর আগের ভারত আর এখনকার ভারত দুইয়ের মধ্যে তফাত অনেক। পদ্মা-গঙ্গা-কৃষ্ণা দিয়ে অনেক কিছু বয়ে গেছে এতদিনে। ভারত বাংলাদেশ দু’টো টেস্ট দলই আমুল পরিবর্তন এসেছে। ভারতীয় দলে একটা আগ্রাসী মনোভাব এসেছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলও অনেক আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে এগোচ্ছে।
বিরাটের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দল এখন আক্ষরিক অর্থেই টেস্ট ক্রিকেটের শাসক। নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছে– ইংল্যান্ডকে হারিয়েছে। অস্ট্রেলিয়াও এ দেশের মাটিতে আসার আগে ভয়ে কাঁপছে। খুব দ্বিধাগ্রস্ত অজিরা। তবে বাংলাদেশ কিন্তু দ্বিধাগ্রস্ত নয়। তারা কিন্তু আত্মবিশ্বাসে ভরপুর। কিন্তু কার বিরুদ্ধে নামছে বাংলাদেশ? সেটা কি জানে তারা? এমন একটা টিমের বিরুদ্ধে নামছে বাংলাদেশ যে টিমটা ১৮টা টেস্টে অপরাজিত। শাকিবরা কিন্তু অতটা ভাবছেন না। হ্যাঁ– ওদের কাছে ভারত কঠিন প্রতিপক্ষ– এটা ঠিক– কিন্তু উপমহাদেশে ক্রিকেট। শাকিবরা এই উপমহাদেশীয় ক্রিকেটে টেস্টটা কিন্তু খুব খারাপ খেলেন না। তার উদাহরণ অজস্টË আছে। যদিও ধারেভারে বাংলাদেশ ভারতীয় দলের কাছে অনেকটাই কিশোর। তার মধ্যে আবার বাংলাদেশ পাচ্ছে না মুস্তাফিজুরকে। কাটারটা কে দেবে? যদিও অনেকগুলো দিন পরে বোলিং অ্যাকশনে পাস করে ভারতের মাটিতে প্রথমবার টেস্ট খেলবেন তাসকিন আহমেদ। যদিও তাসকিন একা কি একাধিক মারকাটারি ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে কাবু করতে পারবেন? এটা একটা বিরাট জিজ্ঞাসা। আবার উলটোদিকে ভারতের যে বোলিং সাইড তাকে সামলানোর মতো ব্যাটসম্যান বাংলাদেশে আছে কি? এটাও একটা জিজ্ঞাসা। যদিও অচেনা ব্যাটসম্যানরা কিংবা অচেনা বোলাররাই বেশি ভয়ংকর হয়ে ওঠেন সবসময়।
দু’টো দলই নিজেরে প্ল্যান ছকে নিয়েছে। বিরাট জানেন একদিনের ক্রিকেট আর টেস্ট এক জিনিস নয়। তা সামনে সে যতই বাংলাদেশ থাকুক না কেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here