ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে বসতি নির্মাণ– বিতর্কিত বিল পাস ইসরাইলি পার্লামেন্টে

1
334

তেল আবিব– ৭ ফেব্র&য়ারি­ আশঙ্কা সত্যি হল অবশেষে। ইসরাইলি পার্লামেন্ট নিসেট-এ পাস হয়ে গেল ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে ফিলিস্তিনিদের ব্যক্তিগত জমিতে ইহুদিদের অবৈধভাবে নির্মিত ঘরবাড়ি বৈধ করার বিল। যার জেরে আগামী দিনে ওয়েস্ট ব্যাঙ্কের প্রায় ৪০০০ বাড়ি বৈধ যাবে। পাশাপাশি সেখান থেকে ইহুদিদের আর ঘরবাড়ি ছেড়ে চলে যাবার প্রয়োজন পড়বে না। তবে গোটা প্রক্রিয়াটির তীব্র বিরোধিতা করেছে ইসরাইলেরই কয়েকটি মানবাধিকার সংস্থা। ক্ষোভ প্রকাশ করেছে প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন। তবে ট্রাম্প প্রশাসন ইসরাইলের পাশে দাঁড়াবার ইঙ্গিতই দিয়েছে।

ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে দখলকৃত এলাকায় গত এক-দেড় দশকে প্রায় ৭-৮ হাজার ইহুদি পরিবার বসবাস শুরু করে দিয়েছে। তারা যেসব জমিতে তাদের ঘরবাড়ি গড়ে তুলেছে– তা ফিলিস্তিনিদের। যা সংবিধান অনুসারে দখল করা যায় না। কিন্তু বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর সরকার সেইসব বিধিনিষেধের তোয়াক্কা না করেই পার্লামেন্টে বিল এনে ওই সব জমিতে তৈরি হওয়া ঘরবাড়ি বৈধ করার সিদ্ধান্ত নেয়। এই বিল নিয়ে খোদ ইসরাইলের রাজনৈতিক পরিমণ্ডলেই জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে। নিসেটের নির্বাচিত সদস্য টিজভি লিভনি যেমন বলেছিলেন– এই বিল পাস হলে ইসরাইলি সেনাবাহিনীকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে দাঁড়াতে হবে। এই বিল পাস নিয়ে আপত্তি রয়েছে সরকারের নিজস্ব আইনজীবীরও। আপত্তি তুলেছে পিস নাও– ইয়েশ দিন এবং অ্যাসোসিয়েশন অব সিভিল রাইটস ইন ইসরাইল নামের তিনটি স্বেচ্ছেসেবী সংস্থাও। সকলেরই বক্তব্য মোটামুটি এক। গোটা প্রক্রিয়াটি অবৈধ নির্মাণকে বৈধ করার আর একটা অবৈধ প্রক্রিয়া।

আন্তর্জাতিক স্তরেও ইসরাইলের এই পদক্ষেপ নিয়ে জোর প্রতিবাদ শুরু হয়েছিল। বিশেষ করে ফিলিস্তিনের মিত্র রাষ্টÉগুলি সরব হয়েছিল ইসরাইল সরকারের এই বিল ঠেকাবার জন্য। একটি প্রস্তাব গত ডিসেম্বরে রাষ্টÉসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ভোটাভুটির জন্য উঠলে ওবামা প্রশাসন তাতে কোনও রকম হেলদোল দেখায়নি। চিরকাল যে আমেরিকার এই ধরনের বিল সমর্থন করার পাশাপশি রাষ্টÉসংঘের তরফে ওঠা বিভিন্ন ইসরাইল বিরোধী প্রস্তাব ঠেকাতে ভেটো প্রয়োগ করেছে তারাই ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে আগ্রাসনের বিরুদ্ধে রাষ্টÉসংঘে প্রস্তাব পাস ঠেকাতে কোনও ভেটো প্রয়োগ করেনি।

1 COMMENT

  1. কিছুদিন পুর্বে জাতিসংঘে একটি বিল পাশহয়,যেখানে বলা হয়েছে ফিলিস্থীনি ভুখণ্ডে ইস্রায়েলের বসতি স্থাপন আন্তর্জাতিক আইনের পরিপন্থী। অথচ ইস্রায়েল তা অমান্য করে বসতি স্থাপনের ঘোষণা দিল।তাহলে ঔধত্যের জবাব দেবে কে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here